পেকুয়ায় যৌতুকের দাবীতে গৃহবধূকে শারীরিক নির্যাতন

নিজস্ব সংবাদদাতা.পেকুয়া:  পেকুয়ায় যৌতুকের দাবীতে এক গৃহবধুকে শারিরিক নির্যাতন চালিয়েছে স্বামীর পরিবার। ২৪ এপ্রিল সকাল ১০ টায় উপজেলার সদর ইউনিয়নের সিকদার পাড়া এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

স্থানীয়সূত্রে জানা যায় ওই দিন ওসমান গণির পুত্র মালেশিয়া প্রবাসী মুফিজের স্ত্রী শারমিন আক্তার কলি (১৮) কে তার বাপের বাড়ি থেকে যৌতুক এনে দেওয়ার জন্য ঘরের একটি কক্ষে বেধে ওই গৃহ বধূ কে তার শ্বাশুড়ি ও দেবর ফরহাদ মিলে শারিরিক নির্যাতন চালায়।

এতে ওই গৃহবধূর শরীরের বিভিন্ন স্থানে গুরুতর আঘাত করে আহত করা হয়। ওই গৃহবধূর পরিবার বিষয়টি জানতে পারলে তারা এসে উদ্ধার করে পেকুয়া সদর হাসপাতালে ভর্তি করে। এদিকে কর্তব্যরত ডাক্তার মনির উল্লাহ জানান ওই গৃহবধূর শরীরে গুরুত্বর আঘাত হয়েছে।

জানা যায় ২০১১ সালে ইসলামি শরিয়ত মোতাবেক বারবাকিয়া ইউনিয়নের পাহাড়িয়াখালী এলাকার শাহ আলমের মেয়ে শারমিন আক্তার কলির সাথে পেকুয়া সদর ইউনিয়নের সিকদার পাড়া এলাকার ওসমান গণির পুত্র মুফিজের সাথে প্রেমের সর্ম্পকের সুবাধে বিয়ে হয়। বিয়ের পর তাদের দাম্পত্য জীবনে এক ছেলে সন্তান জন্ম লাভ করে। তারপরও স্বামী মুফিজ প্রতিনিয়ত যৌতুকের দাবী শারমিন আক্তার কলিকে শারিরিক নির্যাতন চালিয়ে আসছে। এতে সহ্য করে সংসার করলেও স্বামী আরো ছড়া হয়ে এক লক্ষ টাকা যৌতুক দাবী করে যৌতুকের টাকা দিতে না পারলে সে আরেকটি বিয়ে করবে বলে হুমুকি দেয়। শারমিন আক্তার কলি তার দাবী কৃত যৌতুকের টাকা এনে দিতে না পারায় তার স্বামী মুফিজ ৪ বছর আগে শীলখালী ইউনিয়নের জনৈক শিমু নামের এক মেয়েকে বিয়ে করে। সে বিয়ে করে মালেশিয়া চলে যায়।

কলি জানায় তার স্বামী মুফিজ মালেশিয়া থেকে মা ফাতেমা বেগম ও তার ভাই ফরহাদ কে দিয়ে প্রতিনিয়ত শারিরিক নির্যাতন চালিয়ে আসছে। আমি প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করছি। এ ব্যাপারে মামলা করবে বলে জানান ওই গৃহবধূর পরিবার।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

%d bloggers like this: