পরবর্তী নির্দেশনা না দেয়া পর্যন্ত রাঙামাটি কাপ্তাই হ্রদে মাছ ধরা না

ডেস্ক: অনির্দিষ্টকালের জন্য দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার সর্ববৃহৎ কৃত্রিম জলধারা ও বাংলাদেশের প্রধান মৎস্য উৎপাদন ক্ষেত্র কাপ্তাই হ্রদে মাছধরা, সংরক্ষণ, বাজারজাতকরণ, শুকানো ও পরিবহনের ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে।

একই সাথে নিষেধাজ্ঞা অমান্যকারীদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা ঘোষণা করেছে জেলা প্রশাসক। রবিবার মধ্যরাত ১২.০১মিনিট থেকে এ নিষেধাজ্ঞা জারি কার্যকর হয়েছে। এ আদেশ বলবত থাকবে পরবর্তী নির্দেশনা না দেয়া পর্যন্ত।

বাংলাদেশ মৎস্য উন্নয়ন কর্পোরেশন রাঙামাটি জেলা ব্যবস্থাপক কমান্ডার, (জি), বিএন মোহাম্মদ আসাদুজ্জামান, এএফডব্লিউসি, পিএসসি ও রাঙামাটি জেলা প্রশাসন মোহাম্মদ মানজারুল মান্নান যৌথভাবে এ ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে। রাঙামাটি জেলা প্রশাসনে এক আদেশে এ কথা জানানো হয়।
রাঙামাটি জেলা প্রশাসনের আদেশে বলা হয়, রাঙামাটির কাপ্তাই হ্রদে মাছের সুষ্ঠু ও প্রাকৃতিক প্রজনন, বংশ বৃদ্ধি এবং উৎপাদন বাড়াতে চলতি মৌসুমে অনির্দিষ্টকালের জন্য সবধরণের মাছ শিকারের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়। পরবর্তী নির্দেশনা না দেয়া পর্যন্ত হ্রদে সবধরণের মাছ শিকার নিষিদ্ধ করা হয়েছে। এছাড়া সকল প্রকার মাছ আহরণ, সংরক্ষণ, বাজারজাতকরণ, শুকনো ও পরিবহণ সর্ম্পণ নিষিদ্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। তবে শুটকি মাছের ক্ষেত্রে ৩দিনে মধ্যে অর্থাৎ ৩ মে সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত সময় দেওয়া হয়। এ মধ্যে পরিবহন বন্ধ করার জন্য আদেশ জারি করা হয়। এছাড়া বন্ধকালিন সময় হ্রদের পর্যবেক্ষণের জন্য ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনার পাশাপাশি আইন-শৃংখলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্য মোতায়ন থাকবে। আইন অমান্যবারীদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থাগ্রহণ করার কথাও জানানো হয়।

এব্যাপারে বাংলাদেশ মৎস্য উন্নয়ন কর্পোরেশন রাঙামাটি জেলা ব্যবস্থাপক কমান্ডার, (জি), বিএন মোহাম্মদ আসাদুজ্জামান মাছধরা বন্ধকালীন সময় আরোপিত নিষেধাজ্ঞা যাতে কঠোর ভাবে পালন করা হয়, সে লক্ষ্যে সকলের সহযোগিতা করার আহবান জানান।

জানা গেছে, কাপ্তাই হ্রদে মাছধরা বন্ধকালীন সময় প্রর্যাপ্ত পরিমানে কার্প জাতীয় মাছের পোনা অবমুক্ত করা হবে। তাছাড়া কাপ্তাই হ্রদের ৬টি মৎস্য অভয়াশ্রমের পাশাপাশি হ্রদের বিভিন্ন স্থান ডিসি বাংলো, শহীদ মিনার চত্ত্বর, লংগদু ও বরকলের পর্যায়ক্রমে এসব পোনা অবমুক্ত করা হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

%d bloggers like this: