রিটার্নস ‘থ্রি ইডিয়টস’, তবে……….

যখনই কোনো প্রতিকূল পরিস্থিতির সম্মুখীন হবেন, মনে মনে বলবেন, ‘অল ইজ ওয়েল।’ এর ফলে মনের জোর বাড়বে। ২০০৯ সালে এ মন্ত্র শিখিয়ে গিয়েছিলেন থ্রি ইডিয়টসের বাবা রাঞ্ছোরদাস৷ সঙ্গে ছিলেন ফারহান আর রাজু রাস্তোগি৷ এ তিন ইডিয়টের কীর্তি আজও ভোলেননি দেশের মানুষ। সবাই অপেক্ষায় রয়েছেন ‘থ্রি ইডিয়টস্’ রিটার্নসের।

গত বছর সাংবাদিক বৈঠকে ছবির পরিচালক রাজকুমার হিরানী এবং ছবির অন্যতম মুখ্য চরিত্র আমির খান ‘থ্রি ইডিয়টস্’-এর সিক্যুয়েল তৈরির ইঙ্গিত দিয়েছিলেন। সিক্যুয়েল তৈরির আগেই সেই পাগলামো আবার ফিরছে বড় পর্দায়। তবে এ ছবিতে আমির খান, শরমন যোশী বা মাধবন কেউ নেই! কারণ এ ছবিটি তৈরি হয়েছে স্প্যানিশ ভাষায়। বলিউডের ব্লক বাস্টার ছবি থেকে অনুপ্রেরিত হয়েই স্প্যানিশ ভাষায় ‘থ্রি ইডিয়টস্’ তৈরি করেছেন মেক্সিকান পরিচালক কার্লোস বোলাডো।

মেক্সিকান ‘থ্রি ইডিয়টস্’-এও ক্লাস রুমের মস্করা, প্রফেসর ভাইরাসের মেয়ের বিয়েতে বিনা নিমন্ত্রণে তিন বন্ধুর পৌঁছে যাওয়া, ধরা পড়া— এ সবই দেখতে পাবেন। এমনকী এ ছবিতেও এক স্কুটারে তিন বন্ধুকে হাসপাতালের পথেও যেতে দেখা যাবে। সব মিলিয়ে ছবির কাহিনী, ঘটনা প্রবাহ এমনকী দৃশ্যগুলোও মোটামুটি একই থাকছে মেক্সিকান ‘থ্রি ইডিয়টস্’-এ। শুধু ছবির ভাষা, চরিত্রের নাম আর মুখগুলো পাল্টে গেছে। এ ছবিতে র‌্যাঞ্চোর নাম বদলে গিয়ে হয়েছে প্যাঞ্চো। তবে ‘থ্রি ইডিয়টস্’-এর সেই বিখ্যাত সংলাপ ‘অল ইজ ওয়েল’ এখানে বদলে গিয়ে হয়েছে ‘তোদো এস্তা বিয়েন’। ছবিটি মুক্তি পাচ্ছে ২ জুন। তার আগে দেখে নেওয়া যাক মেক্সিকান ‘থ্রি ইডিয়টস্’-এর অফিসিয়াল ট্রেলারটি।

সূত্র : কলকাতা ২৪

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

%d bloggers like this: