কর্ণফুলী চরলক্ষ্যা উচ্চ বিদ্যালয়ে ঘূর্নিঝড় পূর্ব প্রস্ততি ও গণসচেতনতামূলক মহড়া অনুষ্ঠিত

জে.জাহেদ.কর্ণফুলী: সদ্য ঘোষিত কর্নফুলী উপজেলা প্রশাসনের সহযোগিতায় আজ শনিবার (১৩ মে) দুপুর সাড়ে ৩ টার সময় উপজেলার চরলক্ষ্যা উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে প্রায় ২ সহস্রাধিক মানুষের উপস্থিতিতে ঘূর্নিঝড় সম্পর্কে পূর্ব প্রস্ততি ও গণসচেতনতা মহড়া অনুষ্ঠিত হয়।
এতে বিদ্যালয় শিক্ষার্থী ও এলাকার জনসাধারণকে প্রাকৃতিক দূর্যোগ ও ঘূর্নিঝড় সম্পর্কে ধারণা দেওয়া হয়। উক্ত মহড়া অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন দুর্যোগ ও ত্রান মন্ত্রানালয়ের উপ সচিব জনাব আহমাদুল হক (পরিচালক প্রশাসন সিপিপি)।

কর্নফুলী উপজেলার নব নিযুক্ত উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ আহসা্ন উদ্দিন মুরাদ এর সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন চট্রগ্রাম দক্ষিণ জেলা শ্রমিক লীগের সাঃসম্পাদক ইন্জিনিয়ার ইসলাম আহমেদ,চট্রগ্রাম জেলা সিপিপির উপ পরিচালক রহুল আমিন,বাজার ফায়ার সার্ভিস এর উপ-সহকারী আব্দুল মন্নান, অতিরিক্ত সহকারী সাইফুল ইসলাম, এম মাঈন উদ্দিন প্রমুখ। এ সময় চরলক্ষ্যা বিদ্যালয়ের ৫ শতাধিক শিক্ষার্থী ও ৫ শতাধিক স্বেচ্চাসেবক মাঠ মহড়ায় অংশ নেয়।

সিপিপি কতৃক গনসচেতনামুলক অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে উপ-সচিব আহমাদুল হক জানান,মহড়া কোন বিনোদন নয়,ঘূর্নিঝড় পুর্ব প্রস্তুতি সম্পর্কে জনগনকে সজাগ করে বাস্তব সম্মত প্রতিফলন ঘটানো।

তিনি আরো জানান,সরকার গত ২৬শে এপ্রিল সিপিপি কার্যক্রমে বৃহত্তর কর্মসুচি হাতে নিয়েছে।

বিশেষ অতিথির বক্তব্য উপ পরিচালক রুহুল আমিন জানান,৪৮বছর পুর্বে মানুষ চাঁদে গেছে কিন্তু বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট ঘূর্নিঝড় বিষয়ে কোন প্রযুক্তি আবিঃষ্কার করতে পারেনি। ১৯৯১ সালে ২৯শে এপ্রিল ২২ জন স্বেচ্চাসেবক আত্বহুতি দিয়েছে,১৯৯৭ সালে ১ জন,২০০৭ সালে ৩ জন প্রান দিয়েছে। এছাড়াও ৯১সালে ২৬ হাজার মানুষ প্রান দিয়েছে। এদেশের মানুষ একজনের বিপদে থাকিয়ে থাকেনা,সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেয়।

তিনি আরো বলেন,গর্তের সাপ যখন বিপদ উপলব্ধি করতে ফেরে গর্তে লুকায়,সিপিপি স্বেচ্চাসেবক বাহিনী তখন প্রানের ভয় ত্যাগ করে জীবনবাজি রেখে উদ্ধার কাজ এগিয়ে নেয়। এটাই স্বেচ্চাসেবক দল। এরকম বিশ্বের ইতিহাসে আর কোন বাহিনী নেই বলে মন্তব্য করেন তিনি।

এছাড়াও ইউনিয়ন টিম লিডার ও সাবেক চেয়ারম্যান এম মাঈন উদ্দিন জানান,৪৬৫জন কর্নফুলী উপজেলার স্বেচ্চাসেবকদের পরিচয়পত্র প্রদান করার জোর দাবি জানিয়ে দাপ্তরিক ভাবে কর্নফুলী উপজেলা লেখার মত প্রকাশ করেন।

এক পর্যায়ে উপ-পরিচালক রুহুল আমিন জানান,১৯৭২ সালে ঘূর্নিঝড় প্রস্তুতি কর্মসুচি শুরু হলেও ১৯৭৩ সালের ১পহেলা জুলাই বর্তমান সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা অনুমোদন দেন।

সৌন্দর্যময় মহড়া অনুষ্ঠানে চরলক্ষ্যা শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে প্রাকৃতিক দূর্যোগ ও ঘূর্নিঝড় সম্পর্কে শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের ধারণা দেওয়া হয়। চরলক্ষ্যা ইউনিয়নের স্বেচ্চাসেবক হাসিনা আকতার গানে গানে উপ সচিবের দৃষ্টি আকর্ষণে বিনামূল্যে স্বেচ্চাসেবকদের চিকিৎসা ও দুই ঈদে দুই বোনাস পাবারও আবেদন জানান।

এছাড়াও অনুষ্টানের শেষে মহড়ায় অংশ গ্রহনকারী সকলকে সৌজন্য পুরস্কার দেওয়া হয় । মহড়ায় প্রতিকী অংশগ্রহন করেন প্রাথমিক বিদ্যালয়,মুজিব কিল্লা,পুকুর,মসজিদ,শিক্ষক পরিবার,চেয়ারম্যান পরিবার,সিপিপি প্রশিক্ষণকেন্দ্র,কৃষক পরিবার,ব্রাম্মন পরিবার,জেলে পরিবার ও দোকানদার সহ অনেকে।

স্বাগত বক্তব্য চরলক্ষ্যা সিপিপি টিম লিডার এ,এম বাবুল সকলের সার্বিক সহযোগিতা কামনা করেন। অনুষ্টান বাস্তবায়নে ছিলেন ঘুর্নিঝড় প্রস্তুতি কর্মসুচি (সিপিপি) দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ত্রান মন্ত্রানালয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

%d bloggers like this: